মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

আলতাদীঘি ফাজিল স্নাতক মাদ্রাসা

  • সংক্ষিপ্ত বর্ণনা
  • প্রতিষ্ঠাকাল
  • ইতিহাস
  • প্রধান শিক্ষক/ অধ্যক্ষ
  • অন্যান্য শিক্ষকদের তালিকা
  • ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা (শ্রেণীভিত্তিক)
  • পাশের হার
  • বর্তমান পরিচালনা কমিটির তথ্য
  • বিগত ৫ বছরের সমাপনী/পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল
  • শিক্ষাবৃত্ত তথ্যসমুহ
  • অর্জন
  • ভবিষৎ পরিকল্পনা
  • ফটোগ্যালারী
  • যোগাযোগ
  • মেধাবী ছাত্রবৃন্দ

আলতাদীঘি ফাজিল স্নাতক মাদ্রাসাটি ১৯৬৫ সালে স্থানীয় জনগণের সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠিত হয়। মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে মোঃ মোসলেম উদ্দিন ১.০০ জমি ভবন নির্মাণ এবং মাঠ হিসেবে ব্যবহারের জন্য দান করেন। এছাড়া মোঃ আয়েন উদ্দীন সরদার, আহম্মদ আলী, নাগর আলী, জশমুতুল্যা আকন্দ, ইসমাইল আকন্দ, নজরুল ইসলাম, আলতাফ আলী, বহরম উল্লা, আঃ মালেক, রহিম উদ্দিন, অহির উদ্দিন, খইমন বেওয়া, আতিমন বেওয়া, আয়েজ উদ্দিন, আতিমন বিবি, মকবুল হোসেন, জনাব আলী, আবেতন, আয়মুদ্দিন ও আঃ জুববার জমি দান করেন। মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠার পর হতে অনেক প্রতিকূলতার সঙ্গে সংগ্রাম করে বর্তমানে ফাজিল মাদ্রাসা হিসেবে সুনামের সহিত পরিচালিত হচ্ছে। ০১/০১/১৯৭৬ সালে প্রথম স্বীকৃতি পায় এবং ০১/০১/১৯৮০ সালে মাদ্রাসাটি দাখিল হিসেবে এম পি ও ভূক্ত হয়। আলিম স্বীকৃতি লাভ করে ০১/০৭/১৯৮৫ সালে এবং এম পি ও ভূক্ত হয় ০১/০৬/১৯৮৮ সালে। ফাজিল হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে ০১/০৭/১৯৯৫ সালে এবং এম পি ও ভূক্ত হয় ০১/০২/১৯৯৬ সালে। মাদ্রাসাটি অত্র এলাকায় ধর্মীয় শিক্ষা বিস্তারে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে।

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
মোঃ নজরুল ইসলাম ০১৭১৮-১৬৯৪২১ pkimranst@gmail.com

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল

১ম শ্রেণি- ৮৬ জন, ২য় শ্রেণি- ৩৬ জন, ৩য় শ্রেণি- ৫৪ জন, ৪র্থ শ্রেণি- ৪৬ জন, ৫ম শ্রেণি- ৬২ জন, ৬ষ্ঠ শ্রেণি- ৬২ জন, ৭ম শ্রেণি- ৪১ জন, ৮ম শ্রেণি- ৪০ জন, ৯ম শ্রেণি- ২২ জন, ১০ম শ্রেণি- ৩৩ জন, আলিম ১ম বর্ষ- ১৮ জন, আলিম ২য় বর্ষ- ১৮ জন, ফাজিল ১ম বর্ষ- ১৭ জন, ফাজিল ২য বর্ষ- ২৪ জন, ফাজিল ৩য় বর্ষ- ১৬ জন।

এবঃ ৫ম শ্রেণি- ১০০%, দাখিল ৮ম শ্রেণি- ১০০%, দাঃ ১০ম শ্রেণি- ৯৫%, আলিম- ৯২% ফাজিল- ৮৫%।

বর্তমান গভর্ণিং বডি ২০১১ সালে আগামী তিন বছরের জন্য গঠন করা হয়েছে।

১.আলহাজ্ব মোঃ রিয়াজ উদ্দিন-                           সহ-সভাপতি                                                                                    ৭. মোঃ তোজাম্মেল হক -                 অভিভাবক সদস্য

২. উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, শেরপুর, বগুড়া- বিদ্যোৎসাহী সদস্য                                                                              ৮. মোঃ আবুল হোসেন -                  শিক্ষক প্রতিনিধি

৩. বিভাগীয় প্রধান, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ,সরকারি শাহ সুলতান কলেজ, বগুড়া-  বিদ্যোৎসাহী সদস্য                                   ৯. সুলতান আহমেদ -                     শিক্ষক প্রতিনিধি

৪.মোঃ আব্দুল হামিদ-                      দাতা                                                                                                            ১০. মোঃ রইচ উদ্দিন -                    শিক্ষক প্রতিনিধি                                                                                              

৫.মোঃ বেলালহোসেন অভিভাবক-       সদস্য                                                                                                               ১১. ডাঃ মোঃ রেজাউল করিম -           ডাক্তার সদস্য                                                                                            

৬.মোঃ ইয়াছিন আলী অভিভাবক -        সদস্য                                                                                                            ১২. মোঃ নজরুল ইসলাম -                অধ্যক্ষ/সম্পাদক

৫ম শ্রেণি:    ২০১০ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ৪১ জন। মোট পাস ৪১ জন। ২০১১ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ৫১ জন। মোট পাস ৫১ জন। ০৪ জন A+ পেয়েছে।

৮ম শ্রেণি:    ২০১০ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ৩৪ জন। মোট পাস ৩৪ জন। A=07, A-=15, B=07, C=05।  ২০১১ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ৩১ জন। মোট পাস ৩১ জন। A=14, A-=13, B=03।

১০ম শ্রেণি:   ২০০৭ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ১৯ জন। মোট পাস ১৫ জন। A=11, A-=01, B=02, C=01।  ২০০৮ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ১৬ জন। মোট পাস ১৫ জন। A=10, A-=02, B=03।

                 ২০০৯ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ২১ জন। মোট পাস ২০ জন। A+=04, A=08, A-=04, B=03, C=01।  ২০১০ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ১৭ জন। মোট পাস ১৭ জন। A+=03,A=11, A-=02, D=01।

                 ২০১১ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ১৯ জন।মোট পাস ১৮ জন। A=15,  A-=03। 

আলিম শ্রেণি:  ২০০৭ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ১৫ জন। মোট পাস ১০ জন। A=03, A-=01, B=01, C=04, D=01।  ২০০৮ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ১৫ জন। মোট পাস ১৫ জন। A+=01,A=01, A-=03, B=03।

                 ২০০৯ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ১৫ জন। মোট পাস ১৩ জন। A+=01,A=06, A-=04, B=02।  ২০১০ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ১৫ জন। মোট পাস ১৩ জন। A=01, A-=02, B=02, C=04, D=04।

                  ২০১১ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ১২ জন। মোট পাস ১১ জন। A+=01,A=03, A-=04, B=02, D=01। 

ফাজিল শ্রেণি:    ২০০৭ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ২০ জন। মোট পাস ১৯ জন। ১ম বিভাগ- ০২, ২য় বিভাগ- ১৫, ৩য় বিভাগ- ০২। ২০০৮ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ২১ জন। মোট পাস ১৮ জন।A-=02, B=02, C=12, D=02।

                   ২০০৯ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ২৬ জন। মোট পাস ১৯ জন।A-=04, B=06, C=09।  ২০১০ সাল, অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থী- ৪১ জন। মোট পাস ৩৫ জন।A-=02, B=10, C=21, D=02।

২০০৯ সালে বাংলাদেশ মাদ্ রাসা শিক্ষাবোর্ড হতে ০২ জন শিক্ষার্থী শিক্ষাবৃত্তি লাভ করে।

মাদ্রাসাটির উত্তরোত্তর উন্নতি, ছাত্র-ছাত্রী বৃত্তি এবং ফলাফল সন্তোষজনক হওয়ায় স্থানীয়ভাবে সুনাম অর্জন করেছে।

মাদ্রাসাটির ছাত্র-ছাত্রীর জন্য সুন্দর ও উপযুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করা, লেখা-পড়ার দিকে আরো বেশি সতর্কতা অবলম্বন করা, অবকাঠামোগত উন্নয়নসহ অন্যান্য সমস্যাদির সমাধান করা।

শেরপুর হাইরোডে বাসস্ট্যান্ড অবস্থিত। সেখান থেকে কলেজ রোড হয়ে ০৭ কি. মি. পশ্চিমে মাদ্রাসাটি অবস্থিত।