মেনু নির্বাচন করুন

পারভবানীপুর বালিকা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়।

  • সংক্ষিপ্ত বর্ণনা
  • প্রতিষ্ঠাকাল
  • ইতিহাস
  • প্রধান শিক্ষক/ অধ্যক্ষ
  • অন্যান্য শিক্ষকদের তালিকা
  • ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা (শ্রেণীভিত্তিক)
  • পাশের হার
  • বর্তমান পরিচালনা কমিটির তথ্য
  • বিগত ৫ বছরের সমাপনী/পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল
  • শিক্ষাবৃত্ত তথ্যসমুহ
  • অর্জন
  • ভবিষৎ পরিকল্পনা
  • ফটোগ্যালারী
  • যোগাযোগ
  • মেধাবী ছাত্রবৃন্দ

বিদ্যালয়টি ১৯৫৫ ইং সালে স্থানীয় কায়েক জন শিক্ষক ও বিদ্যানুরাগী ব্যক্তির সহায়তায় প্রতিষ্ঠিত হয়। পরবর্তীতে ১৯৭৩ সালে জাতীয়করণ করা হয়। তখন থেকে এই গ্রামে ২টি স্কুল হওয়ায় এবং এলাকার জনগণ ধর্মভীরু হওয়ার কারণে একটিতে বালক এবং অন্যটিতে শুধু বালিকাদের ভর্তি করানো হতো। পরবর্তীতে ২০০৬ ইং সাল হতে তৎকালীন শিক্ষা কর্মকর্তার নির্দেশে অত্র বিদ্যালয়টিতে বালক এবং বালিকা উভয় শিক্ষার্থীই শিক্ষা গ্রহণ করে উপকৃত হচ্ছে।

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
মোঃ মাহমুদুর রেজা 01723620266 mahamudur_reza@yahoo.com

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল

শ্রেণী

ছাত্র

ছাত্রী

মোট

প্রাক-১ম

০৮

১২

২০

১ম

১৪

১৬

৩০

২য়

০৪

১৪

১৮

৩য়

০৯

১৭

১৬

৪র্থ

১০

১৪

২৪

৫ম

০২

১২

১৪

মোট=

৪৭

৮৫

১৩২

৯৯%

ক্রমিক নং

নাম

পদবী

মোঃ আব্দুর রশিদ প্রং

সভাপতি

মোঃ মোজাম আলী মন্ডল

সহঃ সভাপতি

মোঃ মহমুদুর রেজা

সদ্স্য সচিব

মোঃ আব্দুর রশিদ

সদস্য

নাজমা খাতুন/বিনা

সদস্য

মোঃ ছাবেদ আলী

সদস্য

মোঃ ছোলায়মান আলী

শিক্ষক প্রতিনিধি

মোঃ মোখলেছার রহমান

সদস্য

মোছাঃ পারুল বেগম

সদস্য

১০

মোছাঃ শিউলী বেগম

সদস্য

১১

মোঃ মাহবুবুর রহমান

সদস্য(দাতা)

১২

মোছাঃ শাহিনুর আক্তার

সদস্য

সাল

পরীক্ষার্থীর সংখ্যা

পাশের সংখ্যা

পাশের হার

২০১১

১৭

১৭

১০০%

২০১০

১৩

১৩

১০০%

২০০৯

১০

০৮

৮০%

২০০৮

০৮

০৮

১০০%

২০০৭

২০

২০

১০০%

সুবিধাভোগী ২০১১ ইং ৮৮ জন, ২০১০ ইং সালে সাধারণ গ্রেডে বৃত্তি ০২ জন (বালিকা), ২০১১ সালে সাধারণ গ্রেডে ০১ জন (বালক)।

১০০% ভর্তি করণ। ২ বছরে বৃত্তিপ্রাপ্ত ০৩ জন। ঝঁরে পড়ার হার কমানো,অভিভাবকের সচেতনতা বৃদ্ধি, স্বাক্ষরতার হার বৃদ্ধি, বাল্যবিবাহ প্রবণতা রোধ, নরী শিক্ষার হার বৃদ্ধি।

বিদ্যালয়টি ২০০৯ ইং সাল হতে SLIP প্রকল্পর আওতায় আসার ফলে এলাকার জনগণের মানসিকতা এবং দৃষ্টিভঙ্গি অনেক ইতিবাচক পরিবর্তন হয়েছে।এই ধারাবাহিকতায় অত্র এলাকার শিশু এবং অভিভাবকদের শিক্ষা সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি করে স্বাক্ষরতা তথা শিক্ষার হার বৃদ্ধি করা।পরিবেশের বিভিন্ন ক্ষাতিকর প্রভাব সম্পর্ক এলাকাবাসীকে সচেতন করে তোলা। সামাজিক অবক্ষয় রোধ করা, শিশু শ্রম বন্ধ করে শিশুদের বিদ্যালয়েমুখী করে তোলা। সবপরি বিদ্যালয়ের লেখাপড়ার মান উন্নত করা।

উপজেলা শিক্ষা অফিস হতে বিদ্যালয়ের দুরুত্ব ১০ কি:মি:। শিক্ষা অফিস থেকে রিক্স, ভ্যান,ভুটভুটি অথবা ভাড়াকৃত যে কোন পরিবহণে বিদ্যালয়ে যাওয়া যায়।



Share with :

Facebook Twitter